ছাত্র জীবনে টাকা আয় করার উপায়|How to Earn Money in Student Life.

 ছাত্র জীবনে টাকা আয় করার উপায়|How to Earn Money in Student Life.

ছাত্র জীবনে টাকা আয় করার উপায়|How to Earn Money in Student Life.
ছাত্র জীবনে টাকা আয় করার উপায়


ছাত্র অবস্থা থেকেই অনেকেই আয় করতে চায়। তবে অধিকাংশই মানুষই কয়েকটা আয়ের উপায় ছাড়া আর বেশি কিছু জানেই না। শত উপায়ে ছাত্র অবস্থাতেই টাকা আয় করার সুযোগ রয়েছে। যদি আপনি সঠিক ভাবে পরিকল্পনা মত ভালোমত এগুতে পারেন তাহলে ছাত্র অবস্থা থেকেই ভাল ইনকামের সুযোগ রয়েছে।


আজ আমি ছাত্র অবস্থা থেকেই স্থায়ী আয় করার অভিনব কিছু উপায় নিয়ে আলোচনা করব। পেমেন্ট ১০০% ইনকাম গ্যারান্টি সহ দেখাব।


এবার উপায়গুলো সম্পরকে প্রথমে জানুন এবং থাকুন এবং যেকোন একটি উপায় বেছে নিয়ে আয়ের পথে যাত্রা শুরু করএ দিন।


আসুন তাহলে জেনে নেই ছাত্র অবস্থায় আয় করার ৮ টি অভাবনীয় পদ্ধতি।


Table of Content :


  1. ছাত্র জীবনে টাকা আয়
  2. ছাত্র অবস্থায় আয় করার ৮ টি অভাবনীয় পদ্ধতি
  3. ফ্রিল্যান্সিং
  4. ব্লগিং
  5. ড্রপশিপিং
  6. ওয়েবসাইট ফ্লিপিং
  7. অ্যাডসেন্স
  8. ইউটিউব
  9. ই-কমার্স
  10. অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং




আসুন জেনে নিই বিস্তারিত ছাত্র অবস্থায় আয় করার ৮ টি অভাবনীয় পদ্ধতি সম্পর্কেঃ



ফ্রিল্যান্সিং


এই যুগে ঘরে বসে আয় সহজে করার সমচেয়ে জনপ্রিয় মাধ্যম হল ফ্রিল্যান্সিং। ঘরে বসে আয় করা আসলেই খুব ভাল একটা বিষয়। মনে রাখতে হবে যে আপনি আপনার দক্ষতা অনুযায়ী কাজ পাবেন। তবে এর জন্য আপনাকে প্রথমে দক্ষতা অর্জন করতে হবে।


আপনি যে কাজে বেশি পারদর্শী সেই সব কাজই পাবেন এখানে। প্রচুর পরিমাণে কাজ রয়েছে এখানে। আপনার শুধু দেখতে হবে যে, আপনি আসলে কোন কাজ বেশি ভাল পারেন।


এই যেমন গ্রাফিক্স ডিজাইন, ভিডিও এডিটিং, ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট, অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট, ইমেইল মার্কেটিং, ভার্চুয়াল অফিস, (এসইও)SEO , লিংক বিল্ডিং, ফেইজবুক প্রমোটিং, সোশ্যাল মিডিয়া প্রমোটিং, সোশ্যাল মিডিয়া কমেন্টিং,ইত্যাদি সহ আরও নানা ধরনের কাজ রয়েছে। এর জন্য শুধু আপনাকে যেকোনো একটি কাজ ভালমত জানতে হবে। তারপর এই ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটে আপনি একটা অ্যাকাউন্ট খুলে আপনার কাজ খুজে নিতে হবে। আপনি কাস্টমারদের কাজ নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে করে দিতে পারলেই আপনি মাসে চাইলে ১০০০০-১০০০০০০ টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন।


ব্লগিং


ছাত্র জীবনে টাকা ইনকামের আরেকটা সহজ এবং জনপ্রিয় মাধ্যম হল ব্লগিং। আপনার যদি লেখালেখির ভাল অভ্যাস থাকে তাহলে এটাই হতে পারে আপনার জন্য সবচেয়ে সহজ এবং স্থায়ী মাধ্যম।


আপনি চাইলে যেকোন একটি বিষয় নিয়ে আপনার ব্লগে লিখতে পারেন। ব্লগ লেখার জন কয়েকটি জনপ্রিয় টপিক হল স্বাস্থ, নিউজ, বিনোদন, ট্রাভেল, শিক্ষা, পরামর্শ, ড্রয়িং ইত্যাদি ছাড়াও আরও অনেক টপিক রয়েছে। হতে পারে সেটা বিভিন্ন টিউটরিয়াল বা নিউজ। এর মাধ্যমে আপনি চাইলে স্থায়ী ভাবে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারেন।


ড্রপশিপিং


আপনি যে কোন অনলাইন প্রোডাক্ট বিক্রির ওয়েবসাইট থেকে বা কোন একটা প্রতিষ্ঠানের সাথে ডিল করে তাদের প্রোডাক্ট বায়ারদের কাছে সহজে পৌছে দিয়ে ব্যপক পরিমাণে কমিশন পেতে পারেন।


ওয়েবসাইট ফ্লিপিং


এই কাজটি করার জন্য আপনাকে একটু সময় ব্যয় করতে হবে। আপনি নিজেই ওয়েবসাইট খুলে সেটা কিছু দিন ইউজ করে ভাল ভিউয়ার আনতে পারলে, অর্থাৎ ওয়েবসাইটটি জনপ্রিয় করতে পারলেই আপনি আপনার ওয়াবসাইটটি কে ১২ থেকে ৩৬ গুণ বা তারও চেয়ে বেশি দামে বিক্রি করে দিতে পারবেন। আর এটাই হল ওয়েবসাইট ফ্লিপিং এর কাজ।


অ্যাডসেন্স

গুগল অ্যাডসেন্স হল অনলাইনে টাকা ইনকামের সবচেয়ে বড় মাধ্যম। আর এটি হল গুগলের অ্যাড নেটওয়ার্ক। আপনি নিজের জন্য ওয়েবসাইট খুলে, গেম তৈরি করে, ইউটিউব চ্যানেল খুলে গুগল অ্যাডসেন্স এর সাথে অ্যাড করে দিলেই আপনার অনেক টাকা ইনকাম হবে।


ইউটিউব


ছাত্র জীবনে টাকা ইনকামের আরেকটা সহজ এবং জনপ্রিয় উপায় হল ইউটিউবিং। আপনি ইউটিউবে একটা চ্যানেল খুলতে পারেন। সেখানে আপনি আপনার পছন্দ মত ভিডিও আপলোড করতে পারেন। আপনার চ্যানেলে যদি ১০০০ সাবক্রাইবার এবং ৪০০০ মিনিট ওয়াজ টাইম পূর্ণ হয় তাহলে আপনি পরিমাণে গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য ইনকাম করতে পারেন। সবচেয়ে একটা জনপ্রিয় মাধ্যম হচ্ছে ইউটিউব। অনেক ইয়াং ছেলে-মেয়ে এখন এই কাজ করে অনেক সফল হয়েছে।


ই-কমার্স


ই-কমার্স হল অনলাইনের বড় একটা ব্যবসার মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার একাধিক প্রোডাক্ট বা পণ্য ঘরে বসে বিক্রি করে ইনকাম করতে পারবেন। আপনার যদি নিজের কোন একটা ব্যবসা থাকে। তাহলে তো আরো বেশি সুবিধা হয়। কারণ, আপনি আপনার নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের প্রোডাক্ট বা পণ্য গুলি অনলাইনে ঘরে বসে বিক্রি করতে পারেন। এর মাধ্যমে আপনি বিপুল লাভের পাশাপাশি আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জনপ্রিয়তাও বাড়াতে পারবেন।


আরো পড়ুনঃ

👉লেখালেখি করে টাকা আয় করার ওয়েবসাইট পেমেন্ট বিকাশে


অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং


ই-কমার্স এবং অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের কাজ প্রায় একই রকম। তবে পার্থক্য হল একটাই, ই-কমার্স এর মাধ্যমে নিজের প্রতিষ্ঠানের প্রোডাক্ট বিক্রি করা হয়। আর অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হল এর মাধ্যমে অন্য কোন প্রতিষ্ঠানের পণ্য বিক্রি করতে হয়। এর বিনিময়ে আপনি সর্বোচ্চ ১০% পর্যন্ত কমিশন পেতে পারেন।


আপনার মাধ্যমে যদি কোন প্রোডাক্ট বিক্রি হয় তাহলে আপনি ওই প্রোডাক্টের উপর পূর্ব নির্ধারিত একটি কমিশন পাবেন। এর মাধ্যমে আপনি প্রচুর পরিমাণে ইনকাম করতে পারেন।



মনে রাখবেন যে মানুষের জীবনে সবচেয়ে কঠিন একটা সময় হল ছাত্রজীবন। এই সময়ে আমাদের সবারই খারাপ একটা সময় যায়। আর এই খারাপ সময় যাওয়ার সবচেয়ে প্রধান কারণ হল টাকা। অর্থাৎ এই সময়ে পড়াশুনার পাশাপাশি আসলেই তেমন সময় পাওয়া যায় না। 


যার কারণে এই টাকার সমস্যা হয়। তবে আজ আমার দেখানো এই ৮ টি উপায়ের মাধ্যমে আপনি খুবই সহজেই কম সময়ের মধ্যে ছাত্র জীবনে অনেক পরিমাণে টাকা ইনকাম করতে পারেন।



সূত্রঃ   Quora/Answer 

Report Print

About Author


0 Response to "ছাত্র জীবনে টাকা আয় করার উপায়|How to Earn Money in Student Life."

Post a Comment